মোঃ আমিনুর রহমান আলম, নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ “বন্ধ হোক নারী নির্যাতন, নিশ্চিত হোক দেশের উন্নয়ন” এই প্রতিপাদ্য সামনে নিয়ে ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যুদন্ড, শ্লোগানে টাঙ্গাইলের নাগরপুরে নারী ধর্ষন ও নির্যাতন বিরোধী বিট পুলিশিং সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নাগরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের হল রুমে শনিবার ১৭ অক্টোবর সকাল ১০ টায় এক বিট পুলিশিং এর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নাগরপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এ কে এম কামরুজ্জামান মনি এর সভাপতিত্বে এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নাগরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলম চাঁদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, নাগরপুর মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ মো. আনিছুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রান ও সমাজ কল্যান বিষয়ক সম্পাদক মো. উজ্জল হোসেন মোল্লা এবং ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ডের মেম্বারগণ।
এ সময় বক্তারা বলেন, দেশে ধর্ষনের মত ঘৃণিত অপরাধ বৃদ্ধি পেয়েছে সেই সাথে এই বিষয়ে মিথ্যাচার বৃদ্ধি পেয়েছে। চলমান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ধর্ষনের শাস্তি মৃত্যু দন্ডের আইন প্রনয়ন করেছে সরকার।
এ সময় ওসি আলম চাঁদ বলেন, বিট পুলিশিং আগে বিভাগীয় শহরের মধ্যেই ছিলো, বাংলাদেশ পুলিশের আইজিপি এর বিচক্ষণতায় এখন বিট পুলিশিং গ্রামের মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে গেছে। বিট পুলিশিং এর মূল লক্ষ হচ্ছে ছোট ছোট ঘটনা গুলো যেন বড় অপরাধে রুপ না নেয় এবং পুলিশের সেবা পেতে জনসাধারণের যাতে ভোগান্তি না হয়।
থানায় যে সব ধর্ষন ও অপহরণের মামলা হয় এর সবই কিন্তু প্রকৃত ঘটনার আলোকে নয়। অনেক সময় দেখা যায়, মেয়ে বা মহিলা পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে বা নিজের স্বামীর সংসার টিকিয়ে রাখতে এবং পরকিয়া প্রেম গোপন রাখতে নিজে নির্দোষ প্রমান করতে থানায় এসে ধর্ষনের মামলা দায়ের করে। আবার অপ্রাপ্ত ও প্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে মেয়েরা প্রেম করে পালিয়ে বিয়ে করলে বা বিয়ে করার চেষ্টা করলে অভিভাবকরা এসে অপহরণের মামলা দায়ের করে।
তবে, প্রকৃত ধর্ষনের জন্য যেমন বিকৃত মানসিকতা দায়ী তেমনি অরুচিশীল পোশাকাদি ও উশৃঙ্খল চলাফেরা অনেকাংশে দায়ী। তবে সার্বিক ভাবে দেশে ধর্ষনের অপরাধ বৃদ্ধি পেয়েছে। আমাদের সকলের সচেতনতাই এসব অপরাধ রুখতে সক্ষম হবে।