ব্রিটেনের রাণীর জন্মদিনে প্রদত্ত সম্মাননায় এবার ওবিই খেতাব পেয়েছেন বাংলাদেশি ব্রিটিশ রাজনীতিক লুৎফুর রহমান।জনপ্রতিনিধি হিসেবে স্থানীয় সরকারের গুরুত্বপূর্ন ভূমিকার জন্য লুৎফুর এ সম্মাননায় ভূষিত হন।
লুৎফুর রহমান ম্যানচেষ্টার সিটি কাউন্সিলের নির্বাচিত কাউন্সিলার।তিনি ২০০৮ সালে প্রথম কাউন্সিলার নির্বাচিত হন।এরপর তিনি ২০১২, ২০১৬, ২০১৮ তে ম্যানেচষ্টারের লংসাইট ওয়ার্ড থেকে বার বার নির্বাচিত হয়েছেন।লুৎফুর রহমান বর্তমানে ম্যানচেষ্টার সিটি কাউন্সিলের কালচার এন্ড লেজারের নির্বাহি সদস্য হিসেবে দায়ীত্বপ্রাপ্ত।

জগন্নাথপুর উপজেলার পাটলী (সাতহাল) গ্রামের কৃতিসন্তান, যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার শহরের বাসিন্দা, যুক্তরাজ্যের অত্যন্ত সুপরিচিত ব্যক্তিত্ব, ম্যানচেষ্টার শাহজাল মসজিদের সাবেক চেয়ারম্যান, গ্রেটাম ম্যানচেষ্টার আওয়ামী লীগ এর সভাপতি
জনাব সুরাবুর রহমানের বড় ছেলে

লু্ৎফুর রহমান ওবিই’র ১৯৮০ সালে তাঁর পরিবারের সাথে বাংলাদেশ থেকে ম্যানচেষ্টারে আসেন।ম্যানচেষ্টারের কলেজে পড়াকালীন সময়েই তিন তাঁর পিতার সাথে রেষ্টুরেন্ট ব্যবসার সাথে জড়িযে পড়েন। প্রায় ২২ বছর ক্যাটারিং ব্যবসার সাথেই জড়িত ছিলেন। একসময় তিনি মর্টগেজ এডভাইজার হিসেবে কাজ শুরু করেন এবং এসময়েই কাউন্সিলার নির্বাচিত হন। একসময় তিনি মর্টগেজ এডভাইজারসহ অন্য সকল কিছু থেকে অবসর নিয়ে ২০১৬ থেকে ম্যানচেষ্টার সিটি কাউন্সিলে একজন সার্বক্ষনিক জনপ্রতিনিধি হিসেবে তাঁর ওয়ার্ডের প্রতিনিধত্ব করছেন।
জনপ্রতিনিধি হিসেবে তিনি ম্যানচেষ্টারের বিভিন্ন সামাজিক-রাজনৈতিক এবঙ কমিউনিটির বিভিন্ন সেক্টরে সফলতার সাথে কাজ করেন । বিশেষত যুবসমাজের উন্নয়নে, লাইব্রেরীর উন্নতিসাধনে, ক্রীড়া এবং বিনোদনে তিনি অসাধারন কাজ করেন।
লুৎফুর রহমান সংস্কৃতির বিকাশে তার ক্লান্তিহীন পরীশ্রমে কবিতা উৎসব হয, যেখানে ৬৪ ভাষার কবিদের কবিতা স্থান পায়।
কাউন্সিলার লু্ৎফুর রহমান ন্যাশনাল ফুটবল মিউজিয়াম, ম্যানচেষ্টার একটিভ, আপরাইজিং গ্রেটার ম্যানচেষ্টার, স্ট্যটেজিক এডুকেশন পার্টনারশীপ, এবং গ্রেটার ম্যানেচষ্টার স্কিলস বোর্ডের সদস্য হিসেবে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করছেন।