হঠাৎ বিপদ। অফিসের সহকর্মী নওমি নিশাদ বিপদে পড়েছেন। জরুরি ভিত্তিতে টাকা দরকার। ক্ষুদে বার্তার মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলেন সাজ্জাদ। টাকার পরিমাণ খুব বেশি না। মাত্র দুই হাজার টাকা। এতো অল্প টাকার জন্য বিপদ! সাধারণত নওমির কাছে এই পরিমান টাকা সবসময়ই থাকে। কি হয়েছে জানতে চাইলে ফেসবুকের ম্যাসেঞ্জারে নওমি জানায়, ‘ঢাকার বাইরে এসেছি।

ব্যাগটা হারিয়ে ফেলেছি। টাকা নেই, কার্ড নেই।’ একটা বিকাশ নম্বর দিয়ে এতে টাকা পাঠাতে বলেন নওমি। জানিয়ে দেন, জরুরি। এখন কথা বলার সময় নেই। দ্রুত টাকা দরকার। তেমন কিছু না ভেবেই টাকা পাঠান সাজ্জাদ। পরে জানতে পারেন হ্যাকারের কবলে পড়েছিলেন নওমি। তার আইডি হ্যাক করে এভাবে টাকা হাতিয়ে নেয়। এছাড়াও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির আইডি হ্যাক করে চাঁদাবাজি, প্রলোভন দেখিয়ে টাকা আদায় করে হ্যাকাররা। এমনকি আইডি হ্যাক করে ব্যক্তিগত গোপনীয় তথ্য ফাঁস করে দেয়ার হুমকি দিয়েও টাকা নেয় তারা। এভাবে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে হ্যাকাররা।

নওমিকে টাকা পাঠিয়ে সাজ্জাদ টাকা পেয়েছেন কি-না নিশ্চিত হতে নওমির ফোন নম্বরে কল দিয়ে বোকা হয়ে যান। নওমি বলেন, ‘কিসের টাকা। আমিতো কোনো বিপদে নেই। ঢাকার বাইরেও যাইনি। টাকা চাইবো কেন।’ তারপর ফেসবুক আইডি লগইন করতে গিয়ে ব্যর্থ হন। তার আইডিটি হ্যাক করা হয়েছে। সহকর্মী সাজ্জাদের পর আরও বেশ কয়েক কল আসে পরিচিত জনদের। তাদের কাছ থেকে একইভাবে টাকা নিয়েছে হ্যাকাররা। তারপর পরিচিত জনদের কল দিয়ে জানাচ্ছিলেন, আমার আইডি হ্যাক হয়েছে। টাকা খোঁজলে ভুলেও দিবেন না। একইভাবে ঘনিষ্ঠদের আইডি থেকে এ সংক্রান্ত পোস্ট দেন। থানায় সাধারণ ডায়রি করেন।

একইভাবে কুমিল্লা জজ কোর্টের আইনজীবী আমির হোসেনের ফেসবুক আইডি হ্যাক করে টাকা লুটে নিচ্ছিলো হ্যাকাররা। প্রায় দুই মাসে আগে ঘটে ঘটনাটি। বুঝতে পেরে ফোনে ও অন্যের আইডি থেকে বিষয়টি পরিচিতদের অবগত করেন। থানায় জিডি করেন। কিন্তু সেই আইডি আর উদ্ধার হয়নি। এখন তিনি নতুন আইডি খুলে সেটি ব্যবহার করছেন।

একইভাবে গৌতম কুমার সাহা নামে এক শিক্ষকের ফেসবুক আইডি হ্যাক হয়েছে। ওই আইডি থেকে বাবুল মিয়া শিক্ষকের এক ঘনিষ্ঠ ব্যক্তির কাছেও টাকা খুঁজে হ্যাকাররা। বাবুল মিয়া নামে একজনের সঙ্গে কথোপকোথনে দেখা গেছে, গৌতমের আইডি থেকে প্রথমে জানতে চাওয়া হয়েছে, ‘কই’, বাবুল জানালেন, ‘টাঙ্গাইল’।  তারপর মূল উদ্দেশ্যের প্রকাশ, ‘একটা হেল্প করবে’। বাবুল লিখেন, ‘জ্বি অবশ্যই বলুন, কি করতে হবে।’ ভুল বানানে হ্যাকার লিখে ‘একটা বিকাশ নাম্বারে জরুরি কিচু টাকা দেয়া যাবে, আমি কাল দিয়ে দেব।’ বাবুল জানতে চান, ‘কত? কত দিলে চলবে।’ এবার সাত হাজার টাকা জানিয়ে একটা বিকাশ নম্বর দেয় হ্যাকার। বাবুল জানতে চান, ‘আপনি কোথায় আছেন এখন?’ হ্যাকার রিপ্লে দেয়, ‘বাসায়, কত সময় লাগবে। খুব প্রয়োজন তাই বলতেছি।’ বাবুল জানান, আমিতো অফিসে, দেখি কখন বের হতে পারি।’ হ্যাকার তাড়া দেয়, ‘ একটু কষ্ট করে এখন বের হয়ে দাও, প্লিজ।’ বাবুল জানান, ‘ হাতে কিছু জরুরি কাজ আছে। কাজ না সেরে বের হওয়া যাবে না।’ হ্যাকার জানতে চায়, ‘ আনুমানিক কত সময় লাগবে দিতে?’ বাবুল জানান, ‘ ৪টার পর বের হতে পারব।’ হ্যাকার লিখে, ‘ওকে, মনে করে দিয়ে দিও।’ লেখার সম্বোধন, সহজে টাকা খোঁজা এসব ভেবে সন্দেহ হয়। এবার মোবাইলফোন নম্বর খোঁজেন বাবুল।  ‘ওকে, আপনার মোবাইলফোন নম্বর দেন, টাকা দেয়ার পরে কল করে আপনাকে জানিয়ে দেব।’ এবার হ্যাকার জানায়, ‘যে নম্বর দিয়েছি, এটা আমার। আমিতো অনলাইনে আছি। এসএমএস দিলেই হবে।’

ততক্ষণে বাবুল বুঝতে পারেন, এটা গৌতম কুমার সাহা না। তার আইডি হ্যাক করে অন্য কেউ টাকা চাচ্ছে। গৌতম কুমার সাহার সঙ্গে যোগাযোগ করে বিষয়টি নিশ্চিত হন তিনি। এভাবে প্রায়ই আইডি হ্যাক করে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা লুটে নিচ্ছে হ্যাকাররা। এসব হ্যাকাররা আইটি বিষয়ে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। অনেকে দেশের বাইরে বসেও হ্যাকিং করে টাকা লুটে নেয় বিশেষ কৌশলে। গত অক্টোবরে কাওসার আহমেদ (২০) নামে এক হ্যাকারকে  গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগের একটি দল। ২রা অক্টোবর রাতে কুমিল্লার একটি হোস্টেল থেকে গ্রেপ্তার করা হয় তাকে। কাওসার দুই শতাধিক আইডি হ্যাক করে লাখ লাখ টাকা লুটে নিয়েছে।  অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) নাজমুল ইসলাম জানান, মোহাম্মদপুর থানার একটি মামলার সূত্র ধরে তদন্তে নামে সাইবার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্রাইম বিভাগ। পরে তাকে গ্রেপ্তার হয়। ফিশিং লিংকের মাধ্যমে ফেসবুক আইডি হ্যাক করতো কাওসার। হ্যাক করা আইডির টাইমলাইনে ও ইনবক্সে অশ্লীল ছবি, ভিডিও, অশ্লীল কথাবার্তা লিখে পোস্ট করে মান সম্মান হানির ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন অংকের টাকা দাবি করতো।  গ্রেপ্তারের সময় কাওসারের ব্যবহৃত স্মার্টফোনে দুই শতাধিক ফেসবুক আইডি ব্যবহারের আলামত পাওয়া যায়। আইডি হ্যাক করে এবং কৌশলে ক্ষতিগ্রস্তদের আইডি ফেরৎ দেয়ার কথা বলে কিছু বিকাশ পার্সোনাল-এজেন্ট অ্যাকাউন্ট ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে টাকা নিতো কাওসার। তার কাছ থেকে দুটি মোবাইলফোন, নগদ পাঁচ লাখ টাকা এবং মোবাইল ব্যাংকিংয়ে ৭৭ হাজার ৭৮৬ টাকা জব্দ করা হয়।

২রা ডিসেম্বর বিকালে রাজশাহী থেকে আতিকুল ইসলাম (২২) নামে এক হ্যাকারকে গ্রেপ্তার করেছে সিটিটিসি’র সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগ। জানা গেছে, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তারের নামে ফেইক আইডি খুলে চাঁদাবাজির অভিযোগে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় তার কাছে থেকে মোবাইলফোন, টাকা, বিকাশ একাউন্ট ও কয়েকটি ফেইক আইডি জব্দ করা হয়। সিটিটিসি’র সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, যুব মহিলা লীগের সভাপতি নাজমা আক্তার, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিলসহ আরো অনেকের নামে ফেইক আইডি খুলে কমিটিতে পদ-পদবি দেয়ার প্রতিশ্রুতিসহ নানা প্রলোভন দেখিয়ে অনেকের কাছ থেকে বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিচ্ছিলো। বিষয়টি সিটিটিসি’র সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের নজরে এলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এভাবে প্রতিনিয়ত ফেসবুক আইডি হ্যাক হচ্ছে। প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে হ্যাকাররা। এসব বিষয়ে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন আইটি বিশেষজ্ঞরা। প্রয়োজনে সিটিটিসি’র সাইবার নিরাপত্তা ও অপরাধ বিভাগের সহযোগিতা নিতেও পরামর্শ দেন তারা।

228 total views, 2 views today